শিরোনাম :
যত লাখ কোটি টাকা খরচ করে বিশ্বকাপ আয়োজন কাতারের, জানলে আপনার চোখ যাবে কপালে উঠে হুট করে উড়ে এলো মুস্তাফিজকে নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য ক্রিকেট পাড়ায় শোকের ছায়াঃ মারা গেলেন ৩৬ বছর বয়সের পাক তারকা ক্রিকেটার টাইগার ভক্তদের জন্য বিশাল সুখবর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ১৬ দলের স্কোয়াডে যারা, দেখে নিন এক নজরে দারুন সুখবরঃ আমিরাতে সুযোগ না পাওয়া সৌম্য এবার ত্রিদেশীয় সিরিজে, সাথে শরিফুলও অবিশ্বাস্যকরঃ টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য আকাশ ছোয়া প্রাইজমানি ঘোষণা, কোনো ম্যাচ না জিতলেও বাংলাদেশ পাবে যত লাখ এইমাত্র পাওয়াঃ বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ংকর স্লোয়ার ফাস্ট বোলার এক টাইগার পেসার অবাক গোটা ক্রিকেট বিশ্ব, অবিশ্বাস্য কারণে কেটে নেওয়া হলো ১০ পয়েন্ট ব্রেকিং নিউজঃ অবশেষে আইসিসির দেখানো নিয়ম মেনে নিল বিসিবি, টি-২০ স্কোয়াডে আসছে পরিবর্তন
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩০ পূর্বাহ্ন

“ইবাদতে নিয়তের গুরুত্ব ও বিধান”

রিপু / ৩৬ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিদিনের পোস্ট ||

যেকোনো ইবাদতে নিয়তের গুরুত্ব অপরিসীম। নিয়ত হলো ইবাদতের মূল। নিয়ত ছাড়া ইবাদত পরিপূর্ণ হয় না। নিয়ত অনুযায়ী বান্দা তার আমলের প্রতিদান ও পুরস্কার পাবে। হাদিসে এসেছে, হজরত ওমর (রা.) বলেন, ‘আমি রাসুল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, প্রত্যেক কাজের ফলাফল নিয়ত অনুসারে হয়। প্রত্যেক মানুষ তার কাজের ফলাফল আল্লাহর কাছে তদ্রূপ পাবে, যেরূপ সে নিয়ত করেছে’ (বুখারি : ১)। একজন মুসলমান যত আমলই করুন, যদি নিয়ত পরিশুদ্ধ না হয় তাহলে অনেক বড় কাজও নিষ্ফল হয়ে যায়। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘হে নবী! আপনি বলুন, আমাকে খাঁটি নিয়তে আল্লাহর ইবাদত করতে আদেশ করা হয়েছে’ (সুরা জুমার : ১১)। রাসুল (সা.)-কে যে আদেশ করা হয়েছে, নিশ্চয় তা অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ আল্লাহর কাছে বান্দার আমলের কেবল নিয়তটুকুই পৌঁছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘নিয়ত ছাড়া কোনো আমল গ্রহণ করা হয় না’ (আস-সুনানুল কুবরা : ৬/৪১)।

কুরআনে নিয়তের গুরুত্ব : কোনো মুসলমান পার্থিব জগতের নিয়ত নিয়ে কাজ করলে আল্লাহ তাকে দুনিয়ায় বদলা দেবেন। আর যে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও আখেরাতের উদ্দেশ্যে কোনো আমল করবে সে দুনিয়া ও আখেরাত উভয় জগতে প্রতিদানপ্রাপ্ত হবে। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘যে ব্যক্তি দুনিয়াতে নিজ আমলের বদলা চাইবে তাকে দুনিয়াতেই দিয়ে দেবে (আর আখেরাতে তার জন্য কোনো অংশ থাকবে না)। আর যে ব্যক্তি আখেরাতের বদলা চাইবে তাকে আখেরাতের সওয়াব দান করবে (এবং দুনিয়াতেও দেবে)। আমি অতি শিগগির শোকরগুজারদেরকে বদলা দেব। অর্থাৎ ওই সব লোককে অতি শিগগির বদলা দেব, যারা আখেরাতের সওয়াবের নিয়তে আমল করে’ (সুরা আলে ইমরান : ১৪৫)।

হাদিসে নিয়তের ফজিলত আল্লাহ তায়ালার কাছে বান্দার আমলের ফয়সালা নিয়তের ওপর ভিত্তি করে হয়। বান্দার অন্তরের নিয়ত ও বাহ্যিক অবস্থার মিল থাকতে হবে। কারণ মহান আল্লাহ বান্দার বাহ্যিক অবস্থার ওপর ভিত্তি করে আমলের প্রতিদান দেন না। সুতরাং প্রতিটি কাজের শুরুতে নিয়তকে ঠিক করতে হবে। ভালো কাজের নিয়তের জন্য উত্তম বদলা পাবে আর মন্দ কাজের জন্য পরিণাম ভোগ করতে হবে। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তায়ালা তোমাদের আকার-আকৃতি এবং তোমাদের ধনসম্পদ দেখেন না, বরং তোমাদের অন্তর ও তোমাদের আমল দেখেন’ (মুসলিম : ৬৭০৮)। রাসুল আরও বলেন, ‘সমস্ত আমলের ভিত্তি নিয়তের ওপরই। আর মানুষ যা নিয়ত করবে তা-ই পাবে’ (বোখারি : ৫৪)।

উত্তম নিয়তের উত্তম প্রতিদান
কোনো মুমিন কোনো ভালো কাজ সম্পাদনের জন্য নিয়ত করল, অথচ সে কোনো কারণে ওই কাজ সম্পাদন করতে পারেনি, তখনও সে সওয়াবপ্রাপ্ত হবে। উত্তম আমলের নিয়ত কখনো ব্যর্থ যাবে না। আল্লাহ তায়ালা বান্দার উত্তম নিয়তের প্রতিদান অব্যশই দেবেন। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি ঘুমানোর জন্য নিজের বিছানায় আসে এবং তার নিয়ত এই হয় যে, রাতে জাগ্রত হয়ে তাহাজ্জুদ পড়ব। কিন্তু ঘুম প্রবল হওয়ার কারণে সকালেই চোখ খোলে। তার জন্য তাহাজ্জুদের সওয়াব লিখে দেওয়া হয় এবং তার ঘুম তার রবের পক্ষ থেকে তার জন্য দানস্বরূপ হয়’ (নাসাঈ : ১৭৯৮)। রাসুল (স.) আরও বলেন, ‘যে ব্যক্তির নিয়ত আখেরাত হয় আল্লাহ তায়ালা তার সব কাজকে সহজ করে দেন, তার অন্তরকে ধনী করে দেন এবং দুনিয়া লাঞ্ছিত হয়ে তার নিকট উপস্থিত হয়’ (ইবনে মাজাহ : ৪২৪৪)।

মন্দ নিয়তের মন্দ পরিণাম
মানবসমাজে ‘মুখে মধু অন্তরে বিষ’ এমন স্বভাবের কিছু মানুষ রয়েছে। তারা অন্তরে অসভ্যতাকে লালন করে আর মুখে সভ্যতার বুলি ছুটে। বাহ্যিক দৃষ্টিতে তারা আত্মশুদ্ধির ভাব দেখায়। কিন্তু তাদের অন্তর কপটতায় ভরপুর। অথচ আল্লাহ তায়ালা বান্দার অন্তরের ইচ্ছা বা নিয়তের ওপর ভিত্তি করে কর্মফল দান করেন। সুতরাং মন্দ নিয়তকারী বাহ্যিকভাবে যতই উত্তমরূপ ধারণ করুক না কেন, আল্লাহ তার অন্তরের মন্দ নিয়তের পরিণাম নিশ্চিত ভোগ করাবেন। আল্লাহ তায়ালার কাছে শুধু নিয়তই বিবেচ্য। আল্লাহর নিকট বান্দার দৈহিক গঠন ও রং গ্রহণযোগ্য নয়, বরং আত্মার শুভ্রতাই গ্রহণযোগ্য। যাই হোক, কোনো মুমিন ব্যক্তি যখন দুনিয়া অর্জনের নিয়ত করবে সে শুধু দুনিয়াই পাবে, আখেরাতে তার কোনো প্রতিদান নেই। এ প্রসঙ্গে রাসুল (সা.) বলেন, ‘দুনিয়া যে ব্যক্তির উদ্দেশ্য হয়ে যায়, আল্লাহ তায়ালা তার সব কাজকে বিক্ষিপ্ত করে দেন (অর্থাৎ প্রত্যেক কাজে তাকে চিন্তিত করে দেন)। অভাবের ভয় তার চোখের সামনে করে দেন এবং দুনিয়া থেকে সে ওইটুকু পায় যেটুকু তার জন্য পূর্ব থেকে নির্ধারিত ছিল’ (ইবনে মাজাহ : ৪২৪৪)।

নিয়তের বিধান
ইসলামের ইবাদত দুই প্রকারে বিভক্তÑ১. মূলগতভাবে ইবাদত। যেমনÑনামাজ, রোজা, হজ, জাকাত ইত্যাদি। ২. মূল ইবাদতের জন্য সহায়ক ইবাদত। যেমন-অজু, গোসল, তায়াম্মুম ইত্যাদি। মূলগত ইবাদত নিয়ত ছাড়া শুদ্ধ হয় না। তাই নামাজ, রোজা, হজ, জাকাত ইত্যাদি আদায় করতে নিয়ত করতে হবে। আর মূল ইবাদতের সহায়ক ইবাদতের জন্য নিয়ত জরুরি নয়। তাই অজু, গোসল ইত্যাদি নিয়ত ছাড়া আদায় করা যাবে। তবে তায়াম্মুম ও মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেওয়া মূলগত ইবাদত না হলেও তাতে নিয়ত করা আবশ্যক (আল-আশবাহ ওয়ান নাজায়ের : ৩০)।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ   রিপু /প্রতিদিনের পোস্ট


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Warning: Undefined variable $themeswala in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229

Warning: Trying to access array offset on value of type null in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229