শিরোনাম :
যত লাখ কোটি টাকা খরচ করে বিশ্বকাপ আয়োজন কাতারের, জানলে আপনার চোখ যাবে কপালে উঠে হুট করে উড়ে এলো মুস্তাফিজকে নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য ক্রিকেট পাড়ায় শোকের ছায়াঃ মারা গেলেন ৩৬ বছর বয়সের পাক তারকা ক্রিকেটার টাইগার ভক্তদের জন্য বিশাল সুখবর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ১৬ দলের স্কোয়াডে যারা, দেখে নিন এক নজরে দারুন সুখবরঃ আমিরাতে সুযোগ না পাওয়া সৌম্য এবার ত্রিদেশীয় সিরিজে, সাথে শরিফুলও অবিশ্বাস্যকরঃ টি-২০ বিশ্বকাপের জন্য আকাশ ছোয়া প্রাইজমানি ঘোষণা, কোনো ম্যাচ না জিতলেও বাংলাদেশ পাবে যত লাখ এইমাত্র পাওয়াঃ বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ংকর স্লোয়ার ফাস্ট বোলার এক টাইগার পেসার অবাক গোটা ক্রিকেট বিশ্ব, অবিশ্বাস্য কারণে কেটে নেওয়া হলো ১০ পয়েন্ট ব্রেকিং নিউজঃ অবশেষে আইসিসির দেখানো নিয়ম মেনে নিল বিসিবি, টি-২০ স্কোয়াডে আসছে পরিবর্তন
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৮:২৪ পূর্বাহ্ন

“দেশে ফিরেই কৃষি কাজের মাধ্যমে কোটিপতি”

রিপু / ২৮ বার
আপডেট : রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রতিদিনের পোস্ট ||

রাজশাহী জেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের বেনিপুরের মো. ওয়াদুদ আলী (৬২) ছেলে মাজাহারুল ইসলাম (৩০)। বাবার সংসারে অভাব মেটাতে ২০১৩ সালে পাড়ি জমান দক্ষিণ কোরিয়ায়। ৫ বছর পর কিছু অর্থ নিয়ে দেশে ফিরেই বাবার সাথে আবারো শুরু করেন কৃষিকাজ। তবে এবার কৃষিতে আধুনিক প্রযুক্তি, শ্রম ও নিষ্ঠার সংমিশ্রণ ঘটিয়ে হয়ে উঠেন কোটিপতি।

আধুনিক চিন্তাধারার মাজহারুল কেনেন ‘ইয়ানমার কোম্বাইন হার্ভেস্টার’ নামের একটি কৃষিযান। এটি মূলত ধান কাটাই, মাড়াই-ঝাড়াই ও বস্তাভর্তি করার একটি আধুনিক মেশিন। মেশিনটি তিনি ৫০% সরকারি ভুর্তকিতে ১৪ লাখ টাকায় নেন।
তবে কিছুদিন যেতে না যেতেই যন্ত্রটি নিয়ে পড়েন বিপাকে। এতে প্রায়শই দ্বারস্থ হতে হতো উপজেলা কৃষি অফিসারের নিকট। এতে হার্ভেস্টার মেশিনটির নানান সমাধানের পাশাপাশি তিনি ধারণা পান বিভিন্ন লাভজনক চাষাবাদ ও ট্রেনিং।

এরপর বাবার কাছে থেকে নেন দেড় বিঘা জমি। সেখানে পরীক্ষামূলকভাবে নিজেই চায়না জাতের ‘বল সুন্দরী’ বড়ই চাষাবাদ শুরু করেন। এছাড়াও চাষ করেন মাল্টা, কমলা, পেয়ারা ও সিডলেস লেবু। এতে সহায়তায় করেন তদকালীন উপজেলা কৃষি অফিসার মো. শফিকুল ইসলাম ও গোদাগাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মো. মতিউর রহমান।

লাভের আশা দেখাতে পাওয়ায় প্রবাসফেরত চার বন্ধুকে করেন অংশীদার। নিজ গ্রামে লিজ নেন ৪৫ বিঘা জমি। নিজে কাজ করার শর্তে অংশিদার হন ৫০% এবং বাকি তিনজন নিবেন ৫০% লাভের অংশ। নিজ জমিসহ মোট সাড়ে ৬০ বিঘা জমিতে শুরু করেন বিভিন্ন ফল ও সাথী ফসলের চাষাবাদ। এই সাড়ে ৬০ বিঘা জমির মধ্যে ৭ বিঘা জমিতে ১৪০০ চায়না জাতে শীতকালীন ফল ‘বল সুন্দরী’ বড়ই গাছ লাগান। এছাড়াও মাল্টা, সিডলেস লেবু ও কমলা গাছের ১২ ফিট ব্যবধানের মাঝখানে আরোও ২২০০ বড়ই গাছ লাগান সাথী ফসল হিসেবে।

এদিকে জুনের মাঝে ৬ বিঘা জমিতে লাগান ২৪০০ থাই গোল্ডেন পেয়ারার গাছ। চায়না, দারজিলিং, মান্দারিন জাতের ৭০০টি কমলা গাছ লাগান ১২ বিঘায়। ‘বারি-১’ জাতের ৭০০টি মাল্টার গাছ লাগান আরও ১২ বিঘায়। আবার বারমাসি ৬০০০ ‘সিডলেস লেবু’ লাগিয়েছেন ১৮ বিঘা জমির ওপর। সারাবছর ফলন হওয়ায় লাভও হয় অনেক। অন্যদিকে, ১০০টি কাজু বাদাম রোপন করেছেন ১ বিঘায়।

এছাড়াও সৌখিন মাজাহারুল আড়াই বিঘা জমিতে লাগিয়েছেন- জাপানের জাতীয় ফল পারসিমন, পাকিস্তানি আনার, তুরস্কেও ত্বীন, থাইল্যান্ডের লংগন (কাঠলিচু), অস্ট্রেলিয়ার সাত মসলা (১/২টি পাতায় দিলেই সাতটি মসলার কাজ করে), ব্রুনায়ের জাতীয় ফল রাম ভুটান যা অনেকটা করোনাভাইরাসের ছবি মতন দেখতে। দেশী-বিদেশী বিভিন্ন জাতের ফুল ও সবজির আবাদ করেছেন তিনি।

মাজহারুল বড়ই, কমলা ও পেয়ারা চারা সংগ্রহ করেছেন চুয়াডাঙ্গার বিভিন্ন নার্সারী থেকে। লেবু ও মাল্টা এনেছেন টাঙ্গাইল থেকে। সাথী ফসল হিসেবে লাগানো হয়েছে- ২২০০ বড়ই গাছ, ১২০০ টমেটো গাছ, ফুলকপি ২০০০, বাধাকপি ৪০০০, ব্রোকলি ১০০ এবং ক্যাপ্সিক্যাম ১০০ টি।

চাষাবাদে সফলতার বিষয়ে প্রবাসী মাজাহারুল বলছেন, ‘চলতি বছর জমিতে সাথী ফসল বড়ই বিক্রি করেছেন আয় হয়েছে প্রায় ৩০ লাখ টাকার। অন্যদিকে, সাথী সফল ফুলকপি, বাধাকপি, টমেটো বেঁচে পেয়েছেন আরো ৫ লাখ। এসব ঢাকার যাত্রাবাড়ী ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন পাইকারী আড়তদারদের কাছে বিক্রি করেছেন। তবে সাথী ফসল হিসেবে ব্রোকলি ও ক্যাপ্সিক্যাম লাগালেও তা বিলিয়ে দেন গ্রামবাসীদের।

মাজহারুলের বলেন, ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত পেয়ারা থেকে আসবে আরও ১৫ লাখ টাকা। এছাড়া, গত রোজার ঈদে লেবু থেকেই আয় হয়েছে ৪৫ লাখ টাকা। এদিকে মাল্টা ও কমলা থেকে এসেছে প্রায় ৩৫ লাখ মতো। সবমিলিয়ে বিনিয়োগের ৩০ লাখ সহ ঘরে মুনাফা এনেছেন কোটি টাকার।’

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার বিষয়ে সফল এই প্রসাবী উদ্যোক্ত বলেন, ‘আবাদকৃত জমির পাশেই আরোও ৭০ বিঘা লিজ নেওয়ার কথাবার্তা চলছে। সেখানে ৪০ বিঘায় বড়ই ও ৩০ বিঘায় সিডলেস লেবুর চাষাবাদের পরিকল্পনা আছে। এছাড়া ভবিষ্যতে লেবু ও বড়ই এর চারা সংরক্ষণও করতে চাই।’

লেবু ও বড়ই চারা সংরক্ষণের কারণ হিসেবে এ উদ্যোক্তা বলেন, এসব চারা আমি খুব কষ্ট করে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগ্রহ করেছি। এতে শ্রম, সময় ও অর্থ সবই বেশি দিতে হয়েছে। ভবিষ্যতে যেনো আমার মতো এমন কাউকে কষ্ট না করতে হয়, সেজন্যই আমি এসব চারা সংরক্ষণ করতে চাই। আমার গ্রামের কাছে লেবু ও বড়ই চারা নিলে তাদের কম দামে বিক্রি করব।

উদ্যোক্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, কৃষি কাজও একটি ব্যবসা। ব্যবসায় শ্রম-সময় দিলে সাফল্য আসবেই। আমার গ্রামের কৃষক কিংবা শিক্ষিত তরুণ যদি আমার মতন কৃষিতে সফল হতে চান, তাদের আমি কৃষি বিষয়ে সম্পূর্ণ বুদ্ধি-পরামর্শ দেবো। শুধু তাই নয়, আমার নার্সারীর চারাও শিক্ষিত তরুণদের অর্ধেক দামে দেবো।

সফল উদ্যোক্তা মাজাহারুলের বিষয়ে গোদাগাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মতিউর রহমান বলেন, মাজহার নিজের দেড় বিঘা জমিতে নিজ উদ্যোগেই বলসুন্দরী বরই গাছ লাগান। পরে জমিগুলোতে মাল্টা, লেবু, কমলা ও পেয়ারাসহ সাথী ফলস চাষের বিষয়ে আমরা তাকে কৃষি সহায়তা প্রদান করি। নিজের শ্রম ও মেধা খাটিয়ে সে সফল হয়েছে এবং তার বন্ধুদেরও সফল লাভবান করেছে। তার জমিতে এপর্যন্ত ১৫০ জনের অধিক ব্যক্তি কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন ট্রেনিং, পর্যবেক্ষণ ও গবেষণার জন্য এসেছেন। তার এ সফলতা সত্যিই প্রশংসনীয়।’

রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক আব্দুল্লাহ হীল কাফি বলেন, বরেন্দ্র অঞ্চলে উচু জমিতে পানির সঙ্কটের কারণে ধান-গমের চাইতে ফল চাষ অধিক উপযোগি, পানিও কম লাগে। সেক্ষেত্রে মাজাহারুলকে চিরাচরিত চাষাবাদের পরিবর্তে লাভজনক ফল চাষের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ থেকে পরামর্শ সহ সকল সরকারি সহায়তা করা হয়। যার কারণে সে সফল হয়েছে।’

মাজহারুলের সফলতার বিষয়ে তিনি বলেন, কৃষিতে স্বনির্ভরতা দেশের জন্য আর্শীবাদ। তাই মাজাহারুলের সফলতা দেখে আরও দশজন এগিয়ে এসে কৃষিতে বিপ্লব ঘটাক এবং লাভজনক চাষাবাদের মাধ্যমে সফল ও স্বনির্ভর হউক এটাই বর্তমান সরকারের কাম্য।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ণ বেআইনি এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ   রিপু /প্রতিদিনের পোস্ট


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Warning: Undefined variable $themeswala in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229

Warning: Trying to access array offset on value of type null in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229