February 2, 2023, 9:02 am

স্পেনকে হারিয়ে জাপানের অঘটন, হেরেও নকআউটে স্পেন

প্রতিনিধির নাম 48 বার
আপডেট : শুক্রবার, ডিসেম্বর ২, ২০২২

২০১০ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন স্পেনকে হারিয়ে গ্রুপ ই থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউটে উঠে গেছে এশিয়ার দেশ জাপান। এবারের আসরে এটি জাপানের দ্বিতীয় অঘটনের ঘটনা। এর আগে ৪ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে তারা পরাজয়ের স্বাদ দিয়েছিল।

তবে শেষ ম্যাচে জার্মানি কোস্টারিকার বিপক্ষে জয় পেলেও টুর্নামেন্ট থেকে টানা দ্বিতীয়বারের মতো বিদায় নিয়েছে। এর আগে ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপেও গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নেয় তারা। আর জাপানের কাছে পরাজয় সত্ত্বেও রানার্সআপ হিসেবে শেষ ষোলো নিশ্চিত হয়েছে স্পেনের।

তিন ম্যাচ থেকে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে জাপান, ৪ পয়েন্ট নিয়ে গোল ব্যবধানে এগিয়ে থেকে পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে স্পেন, তৃতীয় স্থানে জার্মানি আর ৩ পয়েন্ট নিয়ে একেবারে শেষ স্থানে রয়েছে কোস্টারিকা।

জার্মানিকে হারানোর পর অনেকেই মনে করেছিলেন, জাপানের জয় নেহাতই আকস্মিক একটা ঘটনা! বার বার হবে না। কিন্তু কয়েক দিনের তফাতে স্পেনকে হারিয়ে জাপান বুঝিয়ে দিল, জার্মানির বিরুদ্ধে জয় কোনও অংশেই ‘ফ্লুক’ ছিল না। এশীয় দেশগুলি যে

ইউরোপের দেশগুলির সঙ্গে চোখে চোখ রেখে লড়াই করার জায়গায় চলে এসেছে, বৃহস্পতিবার ফলেই তা প্রমাণিত। প্রথমার্ধে স্পেনের পাসিং ফুটবলে কিছুটা গুটিয়ে গেলেও, দ্বিতীয়ার্ধে জাপান দেখিয়ে দিল প্রেসিং ফুটবল কাকে বলে! দ্বিতীয়ার্ধ জুড়ে আক্রমণ করে

গেলেন জুনিয়া ইতো, ইউরি নাগাতোমো, হিদেমাসা মোরিতারা। স্পেনকে খেলার জায়গাই দিলেন না তারা। প্রথমার্ধে যে পাসিং ফুটবলে দাপট দেখাচ্ছিল স্পেন, দ্বিতীয়ার্ধে তা উধাও! প্রথমার্ধের গল্পটা অবশ্য অন্যরকমই ছিল। খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরু

থেকেই চিরচেনা রূপে স্পেন। বলের দখল নিজেদের কাছে গোলমুখ উন্মোচনের চেষ্টা করে তারা। বিপরীতে জাপানের পরিকল্পনা ছিল ৫ জনকে নিচে রেখে প্রতি-আক্রমণ থেকে সুযোগ তৈরির চেষ্টা করা।

তবে জাপানের এই কৌশল মুখ থুবড়ে পড়ে ম্যাচের ১১ মিনিটেই। দারুণ এক আক্রমণে গোল করে এগিয়ে যায় স্পেন। সেজার এজপিলিকুয়েতার মাপা ক্রসে হেড দিয়ে লা ফুরিয়া রোহাদের এগিয়ে দেন আলভারো মোরাতা। এ বারের প্রতিযোগিতায় তৃতীয় গোল করেন মোরাতা।

নেদারল্যান্ডসের কোডি গাকপোর মতো গ্রুপ পর্বের তিনটি ম্যাচেই গোল করেন তিনি। এর পরে স্পেনের দাপট আরও বেশি করে টের পাওয়া যায়। মাঝমাঠে আরও বেশি পাস খেলতে থাকেন রদ্রি, পাউ তোরেসরা। ২৬ মিনিটে সুযোগ পায় স্পেন। মোরাতার থেকে বল পেয়ে

শট নিয়েছিলেন দানি ওলমো। তা বাইরে যায়। তবে মোরাতা অফসাইডে থাকার কারণে গোল হলেও বাতিল হয়ে যেত। প্রথমার্ধে আর কোনও গোল হয়নি। তবে স্পেনের পাসের আধিপত্য দেখেও থমকে যায়নি জাপান। প্রতিটি বল তারা করেছে তারা। স্পেনের ফুটবলারদের জায়গা

দিতে চায়নি। কোণ ছোট করে এনেছে। সেই সুফল তারা পেয়েছে দ্বিতীয়ার্ধে। বিরতিতে তাকেফুসা কুবোকে তুলে রিৎসু দোয়ানকে নামান জাপানের কোচ হাজিমে মোরিয়াসু। সেই কৌশল কাজে দেয় সঙ্গে সঙ্গেই।

তবে দ্বিতীয়ার্ধে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় জাপানিরা। তিন মিনিটের ব্যবধানে গোল করেন দেওয়ান-তানাকা। এরপর বারবার আক্রমণ গড়েও সমতা ফেরাতে পারেনি স্প্যানিশরা।

জাপান যখন এগিয়ে তখন আল বাইত স্টেডিয়ামে অপর ম্যাচে জার্মানির বিপক্ষে এগিয়ে যায় কোস্টারিকা। এতে তৈরি হয় ২০১০ আসরের চ্যাম্পিয়নদের বাদ পড়ার পরিস্থিতিও। তবে শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জিতে নেয় জার্মানি,

ফলে চার পয়েন্ট নিয়ে ‘ই’ গ্রুপের দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলোতে নাম লেখায় স্পেন। সমান পয়েন্ট নিয়েও গোল ব্যবধানে পিছিয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায় হেভিওয়েট জার্মানি, অন্যদিকে ছয় পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ সেরা হয়ে নকআউটে নাম লেখায় জাপান।


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Warning: Undefined variable $themeswala in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229

Warning: Trying to access array offset on value of type null in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229