শিরোনাম :
শেষ ষোলোতে প্রতিপক্ষ হিসেবে যাকে পেল আর্জেন্টিনা নাকানি চুবানি খেয়ে লজ্জার হার হেরেও শেষ ষোলোতে পোল্যান্ড, মেক্সিকো-সৌদির বিদায় মেসির পেনাল্টি মিসের দিনে সব সমীকরণ উড়িয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে নকআউটে আর্জেন্টিনা গোটা ফুটবল বিশ্বকে তাক লাগিয়ে বলে কয়ে মেসির পেনাল্টি ঠেকালেন পোলিশ গোলকিপার! বিশ্বকাপ জিতবে আর্জেন্টিনা, মেসির মায়ের বিশ্বাস দুই ওপেনারের দুর্দান্ত জোড়া সেঞ্চুরি, দেখুন বাংলাদেশ ম্যাচের সর্বশেষ ফলাফল মেসিকে নিয়ে এক ভক্তের আবেগঘন পোস্ট যা প্রতিটি মেসি ভক্তের হৃদয় ছুয়ে যাবে, মুহুর্তেই সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় বিশ্বের বাঘা দুই ক্রিকেটারকে পেছনে ফেলে সূর্যকুমার ও রিজওয়ানকে নতুন রেকর্ড গড়লেন টাইগার লিটন দাস বিশ্বকাপে আবারো অঘটন, বেঞ্চের শক্তি দেখতে গিয়ে তিউনিসিয়ার শিকার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ব্রেকিংঃ আবারও হাসপাতালে কিংবদন্তি পেলে
বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন

২৪ হাজার হীরা এক আংটিতে

নিউজ ডেস্ক / ১২২ বার
আপডেট : রবিবার, ১৭ জুলাই, ২০২২

২৪ হাজার হীরা এক আংটিতে
নিউজ ডেস্ক একটি কিংবা দুটি নয়, ২৪ হাজার ৬৭৯টি হীরা দিয়ে তৈরি করা হয়েছে একটি আংটি। ভারতের কেরালাভিত্তিক জুয়েলারি প্রতিষ্ঠান ‘এসডব্লিউএ ডায়মন্ডস’ এমনই একটি আংটি তৈরি করেছে। বিচিত্র এই আংটির নাম উঠেছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের খাতায়ও। বলা হচ্ছে, এটি সবচেয়ে বেশিসংখ্যক হীরা দিয়ে তৈরি আংটি।
গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস বলছে, আংটিটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘অমি’। সংস্কৃত এই শব্দের অর্থ ‘অমরত্ব’। এর আকৃতি মাশরুমের মতো। মাশরুম ‘অমরত্ব’ ও ‘দীর্ঘায়ুর’ প্রতীক। নিজেদের প্রতিষ্ঠানের প্রচার–প্রচারণার জন্যই বিশাল এই আংটি তৈরি করেছে এসডব্লিউএ ডায়মন্ডস।
কীভাবে আংটিটি তৈরি করা হয়েছে, তার একটি বর্ণনা দেওয়া হয়েছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসের ওয়েবসাইটে। বলা হয়েছে, প্রথমে প্লাস্টিকের ছাঁচ ব্যবহার করে মাশরুমের ৪১টি পাপড়িসহ আংটিটির একটি প্রতিকৃতি তৈরি করা হয়েছিল। থ্রিডি প্রিন্টিংয়ের মাধ্যমে সেটি নিখুঁতভাবে আবার তৈরি করা হয়। এরপর ছাঁচের মধ্যে ঢোকানো হয় তরল সোনা। মাশরুম আকৃতির সোনার পাতগুলো তৈরি হলে, সেগুলোর দুই পাশে বসানো হয় হীরার টুকরা। এরপর সেগুলো যুক্ত করে আকার দেওয়া হয় আংটির।
গত ৫ মে হীরার আংটিটিকে তালিকাভুক্ত করেছে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস। এসডব্লিউএ ডায়মন্ডসের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, আংটিটির ওজন ৩৪০ গ্রাম। দামও তাক লাগানোর মতোই। কেউ আংটিটি নিজের করতে চাইলে, খরচ করতে হবে ৯৫ হাজার ২৫৩ ডলার, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৮৯ লাখ ৫১ হাজার টাকার বেশি।
এদিকে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লেখাতে পেরে বেশ খুশি এসডব্লিউএ ডায়মন্ডসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল গফুর আনাদিয়ান। তিনি বলেন, ‘যেভাবে আপনি চান, ঠিক সেভাবে আপনার স্বপ্ন সত্যি হওয়ার চেয়ে আনন্দের কিছু হতে পারে না। নতুন একটি গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস জিতেছি, তা জানার পর আমাদের দল এখন খুবই খুশি।’
এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ মেহেদী/নরসিংদী জার্নাল


এ জাতীয় আরো সংবাদ

Warning: Undefined variable $themeswala in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229

Warning: Trying to access array offset on value of type null in /home/khandakarit/pratidinerpost.com/wp-content/themes/newsdemoten/single.php on line 229