বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৮ অপরাহ্ন

৫১২৪ টন চাল জব্দ স্কয়ারের গুদাম থেকে, ম্যানেজার কারাগারে

জেলা প্রতিনিধি, দিনাজপুর / ৫১ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০২২

জেলা প্রতিনিধি, দিনাজপুর || ৫১২৪ টন চাল জব্দ স্কয়ারের গুদাম থেকে, ম্যানেজার কারাগারে।

দিনাজপুরে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড রাইস মিলের গুদামে অনুমোদনের চেয়ে প্রায় পাঁচ হাজার মেট্রিক টন চাল বেশি মজুত করার অভিযোগ উঠেছে। (৩১ মে) সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অভিযান চাালিয়ে গুদামে মজুতকৃত ৫ হাজার ১২৪ মেট্রিক টন সুগন্ধি আতপ চাল জব্দ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় মিলের ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে আটক করা হয়। মামলা দায়েরের পর তাকে বুধবার (১ জুন) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

দিনাজপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্তুজা আল মঈদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় ,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় দিনাজপুরের সদরের চেহেলগাজী ইউনিয়নের গোপালগঞ্জ বাজারে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের মিলে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় কাগজপত্র ও মিলে চাল মজুতের হিসাব চাওয়া হলে মিলের ইনচার্জ ম্যানেজার জায়েদ হোসেন সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন।

মিলের ছয়টি গুদামে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল পাওয়া যায়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৪০ কোটি ৯৯ লাখ ৬২ হাজার ৪০০ টাকা। তবে মিলে ৩১২ মেট্রিক টন চাল মজুতের অনুমোদন রয়েছে। সে হিসাবে মিলে বেশি মজুত ছিল ৪ হাজার ৮১২ টনেরও বেশি চাল। পরে রাত আড়াইটার দিকে মিলের ছয়টি গুদামে রাখা চাল সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের জিম্মায় দিয়ে দেওয়া হয়।

দিনাজপুরের কোতোয়ালি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযান চলাকালে মিলের ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। স্কয়ার কোম্পানিতে অবৈধভাবে চাল মজুতের ব্যাপারে একটি অভিযোগ এসেছে। সেটা আমরা মামলা হিসেবে নিয়েছি। মামলায় অভিযুক্ত ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. কামাল হোসেন বলেন, এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। জেলার বেশ কয়েকটি উপজেলায় এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আজকে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযান পরিচালনা করা হয়নি।

এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পূর্ন বেআইনী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আশিকুল/প্রতিদিনের পোষ্ঠ


এ জাতীয় আরো সংবাদ